সারা দেশে পুলিশের বেপরোয়া হামলা চলছে: রিজভী

0

সারা দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশ বেপরোয়া হামলা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

তিনি জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় একের পর এক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিক্ষোভ করায় তিন শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন রিজভী।

অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও তাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে এ বিএনপি নেতা মূল এবং অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও মামলার বিবরণ তুলে ধরেন।

তিনি জানান, রোববার বিএনপির সহধর্মবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট দীপেন দেওয়ানকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ছাড়া জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল এবং যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনুর বিরুদ্ধে শাহজাহানপুর থানায় মামলা করা হয়েছে।

রিজভী জানান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী, রূপনগর থানা শাখার সদস্য সচিব শামীম আহমেদ এবং পল্লবী থানা শাখার নেতা রাজু ও রাজেশকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়া ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক আনিসুর রহমান রানা, তিতুমীর কলেজের ছাত্রদলের সহসভাপতি শাহনুর সিফাত ও ঢাকা মহানগর (পুর্ব) ছাত্রদল নেতা মো. তুহিন চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রাজধানীর শ্যামপুর থানা বিএনপির রাজা, সুজন ও আহম্মদ; রমনা থানা বিএনপির নেতা ইউছুফ; দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে মিছিল থেকে শামীম, আলীম মোল্লা ও আলমগীর লিটনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রিজভী আরও জানান, বরিশালে বিক্ষোভ মিছিল থেকে স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও কাউন্সিলর মীর জাহিদুল কবির জাহিদ, মাহবুবুর রহমান পিন্টুসহ ৪ জনেরও বেশি নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

এদিকে ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক তানজিবুল হাসান কায়েসকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাহপুর উপজেলা বিএনপির মিছিল থেকে উপজেলা সিনিয়র সহসভাপতি আবদুর রহিম মণ্ডল, যুগ্ম আহ্বায়ক শফিউজ্জামান শফি, জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি জাকির হোসেন, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আল পারভেজ শাহীন, ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান মিলন ও সদস্য সন্দ্বীপ সরকারকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির কার্যালয়ে জেলা সভাপতি মেহেদী আহমেদ রুমী, দফতর সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক, যুববিষয়ক সম্পাদক মেজবাউর রহমান পিন্টু, সমাজকল্যাণ সম্পাদক গাজী গুলজার হোসেনসহ নেতাকর্মীদের পুলিশ অবরুদ্ধ করে রাখে।

রিজভী জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোববার রাতে জেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক খোকনের বাসায় তল্লাশির নামে পুলিশ ব্যাপক ভাংচুর করে এবং পরিবারের লোকজনের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here