মিরসরাইয়ের মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব সম্পন্ন

0

মিরসরাই প্রতিনিধি:
বিশ্বায়নের যুগে প্রতিযোগিতা ও মেধা দিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। ভালো ছাত্র হতে হবে, ভালো লেখাপড়া করতে হবে; মেধা ছাড়া জীবনে ভালো কিছু করা এবং নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছা অসাধ্য। মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের দীর্ঘদিনের সুনাম রয়েছে, সুনামের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে।

আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে দেশের উন্নয়ন হয়। তাই উন্নয়নের ধারাবাহিতা অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। মিরসরাই ইকোনোমিক জোন হচ্ছে, এখানে ২ লক্ষাধিক লোকের চাকুরী হবে। এতে করে মিরসরাইয়ের কেউ আর বেকার থাকবে না। সারাদেশের ন্যায় মিরসরাইয়েও শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে। মিরসরাইয়ের কোন সড়ক পাকাকরণ ছাড়া থাকবে না। মলিয়াইশ বিদ্যালয়ের ভবনের দাবীও শীঘ্রই বাস্তবায়ন করা হবে। মিরসরাইয়ের মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের দুইদিনব্যাপী সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্য গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি এসব কথা বলেন।

এসো প্রাণের টানে, শেকড়ের সন্ধানে-সম্মিলনের আনন্দে উদ্ভাসিত হই’-এই শ্লোগান ধারণ করে দুইদিনব্যাপী সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের সমাপনী দিনে শনিবার (১৩ জানুয়ারি) সকাল ৯ টায় কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা পাঠের মধ্যদিয়ে শুরু হয়। এরপর বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় ছিল দলীয় সংগীত। বেলা ১১ টা থেকে ১৯৬৭ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা স্মৃতিচারণ করেন। মধ্যহ্নভোজ শেষে বিকেলে আলোচনা সভা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সচীব ডা. কামাল উদ্দিন, যুগ্ম সচিব তোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মাসুদ, সদস্য হাসান মো. সাইফ উদ্দিন ও নাহিদুল আনসারের যৌথ সঞ্চালনায় এবং মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের আহবায়ক নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ডা. শেখ শফিউল আজম, বাংলাদেশ নিউজ এজেন্সি’র সম্পাদক মিজানুর রহমান মজুমদার।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কাস্টমস এক্সাইজ এন্ড ভ্যাট অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি কামরুল ইসলাম চৌধুরী, সোনালী ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার এম.এ.কাইয়ুম, পল্লী বিদ্যুতের জি.এম আবু বক্কর সিদ্দিক, মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক দিলীপ রঞ্জন ভৌমিক, মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক সাংবাদিক দেবদুলাল ভৌমিক, কাস্টমস কর্মকর্তা নুরুল হুদা, মঘাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহীনুল কাদের চৌধুরী, জোরারগঞ্জ মহিলা কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি রাশেদা আক্তার মুন্নি, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল হুদা প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে প্রামাণ্যচিত্র ‘প্রিয় বিদ্যালয়’ প্রদর্শন করা হয়।

রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন ফকির সাহাব উদ্দিন ও তার দল। সবশেষে র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়।
এরআগে সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের প্রথম দিনেও ছিল নানা অনুষ্ঠানমালা। হেতালিয়া খালের পাড়ে ১৯৬৭ সালে প্রতিষ্ঠিত মিরসরাইয়ের মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় ৫০ বছরে পা দিল। ওই উপলক্ষে শুক্রবার বেলা আড়াইটায় কোরআন তেলাওয়াত, গীতা পাঠ ও জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে সুবর্ণ জয়ন্তীর দুইদিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। বিকাল ৩ টায় স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। কালো, লাল, হলুদ, নীল, সবুজ, বেগুনী, আকাশী, সাদা, খয়েরীসহ নানা রঙ্গের টি শার্ট গায়ে পরিধান করে র‌্যালীতে পা মেলান শিক্ষক, পড়–য়া, প্রাক্তন শিক্ষার্থী অনেকেই।

ওই র‌্যালী সাধুরবাজার এলাকা পরিক্রমা করে স্কুলে ফেরার পরে বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক দিলীপ রঞ্জন ভৌমিক। আলোচনা সভা ও স্মৃতিচারণ সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সচীব ডা. কামাল উদ্দিন, যুগ্ম সচিব তোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মাসুদ, সদস্য হাসান মো. সাইফ উদ্দিন ও নাহিদুল আনসারের যৌথ সঞ্চালনায় এবং মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের আহবায়ক নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কাস্টমস এক্সাইজ এন্ড ভ্যাট অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি কামরুল ইসলাম চৌধুরী, রাজনীতিক ও কলামিস্ট ড. মাসুম চৌধুরী। স্মৃতিচারণ করেন প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও মিরসরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়াছমিন আক্তার কাকলী, মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি সাহাব উদ্দিন, সাবেক সভাপতি জামাল উল্ল্যাহ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক সাংবাদিক দেবদুলাল ভৌমিক, কাস্টমস কর্মকর্তা নুরুল হুদা প্রমুখ। প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল হুদা।

আলোচনা সভা ও স্মৃতিচারণের মাঝে স্মরণিকা ‘হেতালিয়া’র মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম। সন্ধ্যায় বিদ্যালয় আঙ্গিনার আকাশ আতশবাজি ও ফানুস উৎসবের রঙ্গে রঙ্গীন হয়ে উঠে। রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করে ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সালমা ও তার দল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here